ভিডিও

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email

লকডাউন বলবৎ করতে পুলিশ প্রশাসন তৎপর

শহরের বিভিন্ন অংশেও প্রশাসনের নির্দেশ কঠোরভাবে অনুসরণ করা হচ্ছে না

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email

আসানসোল, সৌরদীপ্ত সেনগুপ্ত : আসানসোল শিল্পাঞ্চলে করোনার সংক্রমণ রোধে রাজ্য সরকার যে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে তা বেশ কিছু জায়গায় কঠোরভাবে অনুসরণ করা হয় নি। বারাবনিতে পুলিশকে দোকান বন্ধ করতে হয়। একইসঙ্গে আসানসোল বাজারে অনেক দোকানদারকে মাস্ক ছাড়াই দেখতে পাওয়া গেছে । লক্ষণীয় বিষয়, রাজ্য সরকার আজ থেকে বাজার- হাট অঞ্চলে বিধিনিষেধ বলবৎ করেছে। সকাল ৭ টা থেকে ১০ টা এবং বিকেল ৩ টা থেকে ৫ টা পর্যন্ত হাট-বাজার খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। যদিও মুদিখানা,চিকিৎসা সম্পর্কিত পরিষেবাগুলিকে ছাড় দেওয়া হয়েছে।

রাজ্য সরকার কোনও ধরণের ঝুঁকি না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আসানসোলের বিভিন্ন থানা এলাকায় ক্রমাগত মাইকিং করে নাগরিকদের সচেতন করা হচ্ছে।

এদিকে ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন বুধবার কোভিড -১১ ভাইরাসজনিত রোগকে মহামারী হিসাবে অভিহিত করেছে। স্পেনের কর্মীরা “ভ্যালেন্সিয়া উৎসব” করোণা ভাইরাসের কারণে বাতিল করেছেন।

বিধানসভা নির্বাচনের পরেই পশ্চিমবঙ্গে করোনার ঘটনাগুলি দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। তবে বিভিন্ন জায়গায় নির্বাচনের কারণে পশ্চিমবঙ্গে লকডাউন বলবৎ করা হয়নি। এখন নির্বাচন শেষ হওয়ার পরের দিনই রাজ্য সরকার পশ্চিমবঙ্গে আংশিক লকডাউন বলবৎ করেছে।

তবে দেখা যায় যে কুলটির কেন্দুয়া বাজার ও অন্যান্য এলাকায় নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও পোশাক, ইলেকট্রনিক্স ইত্যাদির দোকান খোলা ছিল। এলাকার মানুষের মতে প্রশাসনকে এ বিষয়ে কঠোর হতে হবে। আসানসোল শহরের বিভিন্ন অংশেও প্রশাসনের নির্দেশ কঠোরভাবে অনুসরণ করা হচ্ছে না। বারাবনিতে পুলিশকে উদ্যোগ নিয়ে দোকান বন্ধ করতে হয়। একইসঙ্গে গ্রাহকদের মাস্ক পরে সবজি ও মাছের বাজারে আসতে বলা হচ্ছে । তবে দোকানদাররা নিজেও নিয়ম মানছেন না। এ বিষয়টি নিয়ে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।

TAGS

সম্পর্কিত খবর

সর্বশেষ খবর