ভিডিও

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email

নবমীর রাতে খনি এলাকায় চার’টি বাড়িতে চুরি- পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email

সংবাদদাতা, খনি অঞ্চল : নবমীর রাতে পাণ্ডবেশ্বর ও লাউদোহা থানা এলাকায় চারটি বাড়িতে চুরির ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য । পুলিশকে ঘিরে চলল বিক্ষোভ ।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পাণ্ডবেশ্বর থানা সংলগ্ন কলেজ পাড়ায় উত্তম ব্যানার্জী ও সজল পালের বাড়িতে চুরির ঘটনা ঘটে বৃহস্পতিবার নবমীর রাতে । সোনার অলংকারসহ চুরি যায় লক্ষাধিক টাকার । উত্তম বাবু, সজল বাবুরা জানান বাড়িতে তালা দিয়ে সপরিবারে পাড়ার দুর্গা মন্ডপ গিয়েছিলেন প্রতিমা দর্শন করতে । রাত্রি ন’টা নাগাদ বাড়ি ফিরে চুরির ঘটনাটি নজরে আসে তাদের । উত্তম বাবু জানান বাড়ি ফিরে দেখেন বাইরের গেটে তালা বন্ধ থাকলেও বাড়ির সদর দরজার তালা ভাঙ্গা অবস্থায় ছিল । সম্ভবত দুষ্কৃতীরা পাঁচিল টপকে ভেতরে প্রবেশ করে বলে অনুমান । বাড়ির আলমারি ভেঙ্গে সোনার অলংকার, দামি বাসনপত্র ও নগদ লক্ষাধিক টাকা চুরি গেছে বলে উত্তম বাবুর দাবি । একই ঘটনা ঘটে প্রতিবেশী সজল পালের বাড়িতেও । চুরির খবর ছড়িয়ে পড়তে-ই ঘটনাস্থলে ভিড় জমান পাড়া-প্রতিবেশীরা । খবর পেয়ে আসে পাণ্ডবেশ্বর থানার পুলিশ । ক্ষুব্দ বাসিন্দারা পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান । তাদের অভিযোগ থানার ঢিলছোড়া দূরত্বে দুটি বাড়িতে চুরির ঘটনা ঘটলো অথচ পুলিশ কিছুই টের পাইনি । পুলিশের উদাসীনতায় এই ঘটনার প্রমাণ বলে অভিযোগ বাসিন্দাদের । অন্যদিকে একই রাতে আরো দুটি বাড়িতে চুরির ঘটনা ঘটে লাউদোহা থানার মাদারবনি কোলিয়ারি এলাকায় । চুরি দুটি হয় খনি কর্মী কুনাল চক্রবর্তী ও স্কুলশিক্ষক সমর চন্দ্র রায়ের বাড়িতে । তাদের ও অভিযোগ বাড়ি তালা বন্ধ করে পাড়ার পুজো মণ্ডপে গিয়েছিলেন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দেখতে । বাড়ি ফিরে নজরে আসে চুরির ঘটনা । এলাকাবাসীর অভিযোগ পুজোর সময় অনেকে বাড়ি তালাবন্ধ করে হয় মন্ডপ নয়তো প্রতিমা দর্শন করতে বাইরে যান । প্রশাসনের উচিত এই সময়ে এলাকায় নজরদারিতে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করা । প্রশাসনের গাফিলতির কারণে ঘটনাগুলি ঘটেছে বলে অভিযোগ তাদের । শুক্রবার সকালেও পাড়া-প্রতিবেশীদের জটলা ছিল এলাকায় । চুরির ঘটনা ঘিরে এলাকায় রয়েছে আতঙ্ক । প্রতিটি ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে বলে দাবি পুলিশের ।

TAGS

সম্পর্কিত খবর